ভ্রমণের আনন্দ নষ্ট হয় যে ভুলগুলোর কারণে

ছুটি কাটাতে যাচ্ছেন? তবে তাই যান। নতুন জায়গা দেখুন, নতুন মানুষের সাথে মিশুন। ছোট ছোট আনন্দগুলোকে উপভোগ করতে শিখুন। তবেই না হবে ভ্রমণের সঠিক আনন্দ উপভোগ। কিন্তু ধরুন, ছুটি কাটিয়ে এসেও আপনার বিরক্তিভাব কাটছে না। এমনকি ভ্রমণে তিক্ততা চলে এসেছে যার কারণে আর ঘুরতে যাবারও ইচ্ছে নেই। কিন্তু কেন এমনটি হলো?

ঠিকই অফিস থেকে ছুটি নিলেন, নির্ধারিত জায়গায় গেলেন, বেশ কিছু খরচাপাতিও করে আসলেন। তবে ভুলটা কোথায় হলো? আসলে ঘুরতে যাওয়ার উপর বিরক্তি আপনি নিজের অজান্তে তৈরি করে ফেলেছেন। কীভাবে? দেখুন তো, নিচের কোনটার সাথে আপনার অভিজ্ঞতা মিলে যায়? এগুলোর যে কোনোটিই আপনার ভ্রমণের আনন্দ কেড়ে নিতে পারে।

ভ্রমণের বিষয়ে আগে জেনে নেন না আপনি

বেড়াতে গিয়েছেন। কিন্তু কোথায় যেতে হবে, সেখানে দেখার মতো কী আছে, কীভাবে সে জায়গাগুলোতে যেতে হয়, কোথায় থাকা উচিৎ কিছুই জানেন না আপনি। এমনটি হলে কতক্ষণে আপনি জানবেন আর কতক্ষণেই বা ঘুরে দেখবেন সব! যে কোনো ভ্রমণেরই পূর্ব শর্ত হচ্ছে আগে থেকে সে বিষয়ে কিছু জেনে রাখা। নতুন একটি জায়গায় যদি আপনি একদমই না জেনে যান তাহলে ঝামেলায় পড়বেন।

image: Reader’s Digest

যেখানে যাচ্ছেন সে জায়গাটা কেমন সেটা জানতে হলে সে সম্পর্কে গাইড বই পড়ুন, ইতিহাস পড়ুন, তাদের সংস্কৃতি সম্পর্কে জানুন। যত জানবেন তত আপনার জন্য সুবিধা। খোঁজ নিন রেস্টুরেন্ট, পাবলিক ট্রান্সপোর্ট, আকর্ষণীয় জায়গা আর সেখানে মানুষের পেশা সম্পর্কেও। সব জায়গায় হয়তো আপনার যাওয়া সম্ভব নয়, কিন্তু যতটা আপনি জানবেন ততটা ভ্রমণে আপনি আশাহত কম হবেন। ও হ্যাঁ আরেকটা বিষয়, অযথা কোনো ট্রাভেল টিপস মেনে নিজের জানা বিষয়গুলো আবার নষ্ট করে ফেলবেন না যেন!

বাড়তি প্যাকিং

জামা, জুতো, বই, কসমেটিক্সসহ আরও টুকটাক অনেক কিছু নিয়ে ভ্রমণে যান আপনি? তাহলে জানুন ভুলটা আপনি এখানেই করছেন। যত বড় আপনার ব্যাগ হবে, তত বেশি ঝামেলায় আপনি পড়বেন। এয়ারপোর্টে যাওয়া-আসা, হোটেলে চেকিং আর নানা জায়গায় ঘুরতে গেলে সবকিছুতে এই বাড়তি প্যাকিং হবে আপনার বিরক্তির কারণ। আর এই জন্য পরের ভ্রমণে উৎসাহ হারিয়ে ফেলবেন আপনি। তাই যতটুকু সম্ভব ব্যাগ হালকা করুন। খুব জরুরি না হলে ব্যাগে অযথা জিনিস নেওয়ার দরকার নেই। শুরুতেই ব্যাগ গোছানোর জন্য একটা লিস্ট করুন।

image: Reader’s Digest

পোশাকের বেলায় এমন কিছু নির্বাচন করুন যেটি আরামদায়ক আর সহজেই ধুয়ে ফেলা যায়। জুতার ব্যাপারেও এমন। দিন-রাত যে কোনো সময় বের হয়ে যেতে পারবেন এমন জুতা বেছে নিন। সাথে এক-দুইটা পছন্দের বই রাখতে পারেন। যে জিনিসগুলো আপনার মনে হবে আপনি ভ্রমণের জায়গায় গিয়ে কিনতে পারবেন সেগুলো বয়ে নিয়ে না যাওয়াই ভালো।

আর সবচেয়ে বেশি সতর্ক থাকতে হবে টাকার ব্যাপারে। ক্যাশ টাকা বেশি সাথে রাখা উচিৎ নয়। নতুন জায়গার পরিবেশ সম্পর্কে যেহেতু আপনার জানা নেই, সেখানে বিপদের আশঙ্কা সম্পর্কেও জানেন না আপনি। তাই সাথে অল্প পরিমাণ ক্যাশ রাখুন। আর রাখুন কার্ড। যেন প্রয়োজনে যে কোনো সময় টাকা তুলতে পারেন। কথায় আছে, ‘ক্যাশ প্রতিস্থাপন করা যায় না, কিন্তু প্লাস্টিক যায়!’ এটা শুধু একটা সাবধান বাণী মাত্র। বাকি কীভাবে সচেতন থাকবেন সেটা আপনিই নির্ধারণ করবেন।

ভ্রমণপথে বিরতি না নেওয়া

যে কোনো জায়গাতে যেতে হয়তো আপনার একটা প্রস্তুতি থাকে। তবে এটা জরুরি নয় যে ভাবনা অনুযায়ী সবসময় কাজ হবে। ফ্লাইট দেরি হওয়া অথবা ক্যানসেল হয়ে যাওয়া এমনটা হতেই পারে ভ্রমণে। খুব স্বাভাবিকভাবেই বিষয়গুলো কিছুটা উদ্বেগের সৃষ্টি করে। ভ্রমণে ক্লান্ত হয়ে যদি আপনি কোথাও বিশ্রাম না নেন তবে বিরক্তি এসে যাবে ভ্রমণের প্রতি। আর এ কারণে আপনার মাঝে দেখা দিতে পারে হতাশা আর আতঙ্ক। যখনই কোথাও যাচ্ছেন সেখানে কোথায় বিশ্রাম নেওয়ার জায়গা পাওয়া যেতে পারে সে বিষয়ে খোঁজ নিন।

নতুন পরিবেশে মানিয়ে নিতে পারেন না

যদি যাত্রাপথে অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু ঘটে আর সেটা নিয়ে আপনি হতাশায় ডুবে যান তবে সেটি আপনার জন্য ভালো ফল বয়ে আনবে না কখনোই। তাই মানিয়ে নিতে শিখুন।

image: Reader’s Digest

ঝামেলা হতেই পারে, সমস্যা আসতেই পারে এ ব্যাপারগুলো যখন আপনি একদম বুঝে যাবেন তখন এগুলো আর খুব বেশি ঝামেলার মনে হবে না। হতেই পারে আপনি ফ্লাইট মিস করেছেন অথবা থাকার জায়গা পাচ্ছেন না। প্ল্যান কিছুটা রিশিডিউল করে নিন এ সময়।

ভ্রমণে আপনার প্রত্যাশা থাকে অনেক বেশি

আপনি কখনোই বলতে পারবেন না ‘এটিই আমার বেস্ট ট্রিপ ছিল’। হ্যাঁ এটা নিশ্চিত যে আপনি ভ্রমণ থেকে একটা বিরতি চাচ্ছেন, ভাবছেন এই ভ্রমণে আপনি অনেক কিছু পেয়েছেন- কিন্তু এটা ভেবেই আপনি আসলে হতাশায় ডুব দিচ্ছেন অজান্তেই।

image: Reader’s Digest

ভ্রমণ হতে হয় নিশ্চিদ্র ভাবনার। একেক ভ্রমণে একেক অভিজ্ঞতা হবে। সেগুলোই আসলে আপনাকে ছুটিতে থাকা হতাশা কাটাবে। নতুন করে তৈরি করবে না। কাজেই কোনো ভ্রমণে অতিরিক্ত প্রত্যাশা করা কখনোই শ্রেয় নয়।

সঙ্গীর সাথে সঠিক যোগাযোগ নেই

যে জায়গাতেই আপনি বেড়াতে যান না কেন, সাথে যদি সঙ্গী থাকে তবে জরুরি হচ্ছে তার সাথে সঠিক যোগাযোগ রক্ষা করা। নইলে ভ্রমণের সকল আনন্দই নষ্ট হয়ে যাবে। ধরুন আপনি হয়তো সমুদ্রে যেতে চাচ্ছেন কিন্তু আপনার সঙ্গী চাচ্ছে এলাকার দর্শনীয় স্থান ঘুরে বেড়াতে।

image: Reader’s Digest

এমন হলে দুজনেরই মন খারাপ হয়ে যেতে পারে একজন আরেকজনের কথাকে গুরুত্ব দিচ্ছে না বলে। এই ধরনের সমস্যা যেন না হয় সেজন্য আগে থেকেই সঙ্গীর সাথে কথা বলে প্ল্যান রেডি রাখতে হবে। তবে ভবিষ্যতের কথা কে বলতে পারে! যদি পরিস্থিতি সামলানো কঠিন হয়ে যায় তবে কী করবেন সেটার জন্যেও প্রস্তুত থাকতে হবে সব সময়।

বিশ্রাম বিষয়ে অবগত নন আপনি

শুধুমাত্র সমুদ্রের ধারে বসে নয়নাভিরাম দৃশ্য দেখছেন এটাকেই আপনি বিশ্রাম বলেন? তবে আপনি এখনও বেশ একটা ভুল ধারণা নিয়ে বাস করছেন! ছুটি মানে শুধু এক জায়গায় হাত-পা ছড়িয়ে বসে থাকা নয়। মজার আর চ্যালেঞ্জিং কাজও আপনার বিশ্রামের একটা অংশ। আর ফিরে আসার পরে এটিই আপনাকে দারুণ একটা উজ্জীবন শক্তি দেবে। যেখানেই যাচ্ছেন সে জায়গা অনেকটা সময় নিয়ে ঘুরে দেখা, সাইকেল চালানো অথবা কোনো একটা মিউজিয়ামে গিয়ে সারাদিন কাটানো যেখানে গিয়ে সময়ের ব্যাপারে আপনি ভুলে গেছেন- এমন যদি হয় তবেই ধরে নেবেন আপনি বিশ্রামে আছেন!

নতুন জায়গায় গিয়ে পুরনো অভ্যাস ছেড়ে দেওয়া

একটা নতুন জায়গায় আপনি ভ্রমণে গেলেন। কিন্তু এর মানে এই নয় যে প্রতিদিনের অভ্যাসের সবকিছু আপনি ভুলে যাবেন! আপনি যদি নিয়মিত ব্যায়াম করেন তাহলে ছুটিতেও সেটি করুন। এর অর্থ এই নয় যে, সেখানে আপনাকে জিমে যেতে হবে।

image: Firstcry Parenting

আপনি সকালে বা সন্ধ্যায় হাঁটতে যেতে পারেন অথবা মাঠে খেলতে পারেন। তবে জগিংটা এদিক দিয়ে সবচেয়ে ভালো। নতুন জায়গায় জগিংয়ের সাথে সাথে সে জায়গাটিও আপনার দেখা হয়ে যাচ্ছে।

ভ্রমণে গিয়েও টেকনিক্যাল ডিভাইস

ছুটি মানে এই নয় যে সাথে করে আপনি আপনার কাজের জায়গাটিকেও নিয়ে যাচ্ছেন। টেকনিক্যাল সকল কিছু থেকে নিজেকে আলাদা করে রাখতে পারলেই ছুটি উপভোগ করতে পারবেন আপনি। কেউ কেউ আছেন, কাজকেও যেমন সাথে নেন, নিয়ে যান হতাশাও।

image: Reader’s Digest

সাথে যদি ফোন থাকে সেটি দিনের একটা নির্দিষ্ট সময় ব্যবহার করুন। এরপর সেটি রুমে রেখে অথবা সাইলেন্ট করে বের হয়ে পড়ুন নতুনত্ব দর্শনে।

কাজ থেকে ছুটি নিয়ে ভ্রমণে আবার ভ্রমণে গিয়েও কাজ

এমনটাই যদি করে থাকেন তাহলে আর আপনার ছুটিতে গিয়ে কাজ নেই! কাজ থেকে বিরতির জন্যই তো আপনি ছুটিতে যাচ্ছেন। তাহলে ছুটিতে গিয়েও কাজ কেন?

image: Reader’s Digest

ঘুরে এসেও তাহলে আপনার বিরক্তিভাব কাটবে না। তাই চেষ্টা করুন ভ্রমণকে উপভোগ করতে। কাজ তো ফিরে এসেও করবেন!

ফিচার ইমেজ: অ্যাভেনিউ ডট কম

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জয়পুর স্টেশনেই দুঃখ দূর

ঈদ ভ্রমণ: পাহাড়ের স্বর্গ রিশপে