গ্র্যান্ড সেলিম রিসোর্ট এন্ড ট্যুর: শ্রীমঙ্গলের কেন্দ্রবিন্দুতে অসাধারণ এক রিসোর্টের গল্প

বাংলাদেশের উত্তরের বিভাগ সিলেটের অন্যতম শহর শ্রীমঙ্গল। সিলেটের তো বটেই, পুরো বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ ভ্রমণস্থানগুলোর মধ্যে শ্রীমঙ্গল কেড়ে নিয়েছে বহু পর্যটকের নজর। চা বাগানের সাম্রাজ্য হিসেবে পরিচিত শ্রীমঙ্গলের প্রতি পরতে পরতে আছে অদেখা বিস্ময়। পরিবার অথবা বন্ধুবান্ধব নিয়ে কয়েকটা দিন প্রকৃতির মাঝে হারিয়ে যেতে শ্রীমঙ্গলের কোনো তুলনা নেই।

বর্ষাকালেও যেমন শ্রীমঙ্গল থাকে সুজলা-সুফলা, সবুজে ভরপুর, বসন্তেও থাকে সৌন্দর্যে পূর্ণ যৌবনা। তবে একান্তই নিজের মতো সময় কাটাতে চাইলে যেতে হবে একদম নিরিবিলি প্রকৃতির মাঝখানে, একাত্মতা ঘোষণা করতে হবে অসীম সবুজের সাথে। শহরের অলিগলিতে গড়ে ওঠা ঘুপচি ঘরের হোটেলগুলোতে সে সুযোগ পাওয়া না গেলেও শ্রীমঙ্গলের বাঘা বাঘা কিছু রিসোর্টে পাওয়া যাবে তার পূর্ণ স্বাধীনতা। গ্র্যান্ড সেলিম রিসোর্ট এন্ড ট্যুর তেমনই একটি নয়নাভিরাম রিসোর্ট।

গ্র্যান্ড সেলিম রিসোর্ট এন্ড ট্যুর, ছবিঃ t-ec.bstatic.com

শ্রীমঙ্গল মূল শহর থেকে ফিনলে চা বাগানের দিকে মাত্র ২ কিলোমিটার দূরে রামনগরে অবস্থিত এই গ্র্যান্ড সেলিম রিসোর্ট এন্ড ট্যুর সংক্ষেপে জিএসআরটি রিসোর্ট। মৌলভীবাজার জেলার উপজাতীয় গ্রাম মণিপুরী পাড়ার ঠিক সামনে চা-বাগানের মাঝে গড়ে ওঠা এই বিশাল রিসোর্টের মূল আকর্ষণ হলো এটির পেছনের পুরো এলাকা জুড়ে আছে বিশাল চা বাগান আর সামনে মণিপুরী পাড়া।

চা বাগানের ভেতর দিয়েই প্রবেশ করতে হয় নান্দনিক এই রিসোর্টে। দু’পাশে চায়ের বাগান রেখে গড়ে তোলা এই রিসোর্ট প্রথম দেখাতেই যে কারো ভালো লেগে যাওয়ার মতো। পরিবেশ বান্ধব হিসেবেও বেশ জনপ্রিয় এই রিসোর্টটি।

রিসোর্টের রিসিপশন, ছবিঃ grandselimresort.com

এই রিসোর্টে আসতে চাইলে শ্রীমঙ্গল মূল শহর থেকে সিএনজি বা রিক্সা নিয়ে রামনগরে চলে আসতে হবে প্রথমে, ভাড়া ২০ থেকে ৫০ টাকা। তবে রিসোর্টে আগে থেকে বুকিং দিয়ে গেলে আর কর্তৃপক্ষকে জানালে শ্রীমঙ্গল রেলস্টেশন বা বাস স্ট্যান্ড থেকে তারাই আপনাকে রিসোর্টের গাড়িতে নিয়ে আসবে এখানে। সেজন্য আপনাকে আলাদা কোনো টাকা ব্যয় করতে হবে না, শুধু জানাতে হবে আপনার অবস্থান আর কখন নামছেন শ্রীমঙ্গল শহরে।

বাংলাদেশের একমাত্র চা গবেষণা কেন্দ্রের সন্নিকটে অবস্থিত এই রিসোর্টের প্রতিটা দিন মনে হবে চা-গাছের সমুদ্রে আছেন আপনি। চারদিকে কেবল তাজা চায়ের পাতায় ভরা সবুজ প্রান্তর আর অদ্ভুত এক নিস্তব্ধতা ঘিরে থাকা অসামান্য এক পরিবেশে নিজেকে আবিষ্কার করতে কার না ভালো লাগে! শ্রীমঙ্গলের বিখ্যাত সাত রংয়ের চায়ের আবাস “নীলকণ্ঠ” এর সন্ধান পাওয়া যাবে রিসোর্ট থেকে ১০-১৫ মিনিটের হাঁটা দূরত্বে। প্রকৃতিকে পূর্ণ প্রাধান্য দিয়ে বানানো এই রিসোর্টের রুমগুলোর জানালার পর্দা সরালেই চোখের আলোতে ধরা পড়বে চমৎকার চা-বাগান।

আছে নিজস্ব রেস্টুরেন্ট ব্যবস্থা, ছবিঃ exp.cdn-hotels.com

শ্রীমঙ্গল অনেকেই ঘুরতে আসে, নানান রকম জায়গায় করে রাত্রিযাপনের ব্যবস্থা। তবে এই রিসোর্টের ধরনটাই যে আলাদা, একদম প্রাকৃতিক। রিসোর্টে আসা পর্যটকদের শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরিয়ে আনতে সর্বদা রিসোর্টের গাড়ি প্রস্তুত থাকে, সাত থেকে আট ঘণ্টার একদিনের ট্রিপে পুরো শ্রীমঙ্গল ঘুরিয়ে আনবে মাত্র তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকায়। কেউ যদি চায় শ্রীমঙ্গল দেখা শেষে সিলেটও ঘুরতে তাহলে সে ব্যবস্থাও করে দেবে রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ, গাড়ি ভাড়ার ব্যাপারটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে ঠিক কোথায় কোথায় ঘুরতে চাচ্ছেন তার উপর।

শ্রীমঙ্গলের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান থেকে মাত্র ২-৩ কিলোমিটার দূরের এই রিসোর্টে আছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা, সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ আর নিজস্ব ওয়াই-ফাই ব্যবস্থা। সেমিনার রুম, পার্টি রুম সহ বর্তমানে আরো অনেক সুবিধা দিচ্ছে রিসোর্টটি খুবই ন্যায্য মূল্যে। খুব তাড়াতাড়ি নিজস্ব সুইমিংপুলের উদ্বোধন করতে যাচ্ছে রিসোর্টটি। রিসোর্টের সামনে অবস্থিত মণিপুরী পাড়ায় ঘুরতে যাওয়া যায় কোনো এক অলস বিকেলে।

গ্র্যান্ড সেলিমের রুফটপ থেকে তোলা, ছবিঃ grandselimresort.gsrt

বয়স্ক এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য রিসোর্টে আছে বিশেষ ব্যবস্থা। শিশুদের জন্য আছে খেলাধুলার ব্যবস্থা। ২০১৭ সালে উদ্বোধনকৃত এই রিসোর্টটি নতুন হিসেবে বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে, লিখতে গিয়ে আমিই এখানে গিয়ে থাকার লোভ সামলাতে পারছি না। পাঁচ তলা ভবনের এই রিসোর্টটি নতুন হিসেবে অনেক ছাড় দিচ্ছে, অবশ্য এটা নতুন বলেই সম্ভব হচ্ছে।

এতক্ষণ শুধু রিসোর্টের সৌন্দর্যের কথাই বলে গেছি, সবার মনেই একটি প্রশ্ন উঁকি দিচ্ছে, ভাড়া কেমন? ভাড়ার ব্যাপারেই আলোচনা করবো এখন। রিসোর্টটিতে তিন ধরনের রুমের ব্যবস্থা আছে, সুযোগ সুবিধা হিসেবে ভাড়া আমার কাছে যুতসই মনে হয়েছে। নিচে তিন প্রকার রুমেরই সুযোগ সুবিধাসহ প্রতিরাতে থাকতে কত খরচ হতে পারে তার একটা খসড়া দিচ্ছি যা এখন পর্যন্ত বহাল আছে এবং ভবিষ্যতে পরিবর্তিত হতেও পারে আবার নাও হতে পারে যা সম্পূর্ণ রিসোর্ট কর্তৃপক্ষের উপর নির্ভর করবে।

ফ্যামিলি স্যুট

ফ্যামিলি স্যুট, ছবিঃ aff.bstatic.com

পরিবার নিয়ে থাকার জন্য বিশেষভাবে তৈরী এই রুমগুলোতে আছে পর্যাপ্ত পরিমাণ জায়গা যা তিন জনের একটি পরিবারের জন্য বেশ উপযোগী। দুটো বেডরুমে আছে একটি কাপল বেড এবং একটি সিংগেল বেড যাতে তিন জন অনায়াসেই ঘুমানো যাবে। বাথরুমে বাথটাব সহ রুমে আছে টিভি, সোফা। পুরো রুম শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এবং টাইলস করা। ফ্যামিলি স্যুটের প্রতি রাতের ভাড়া ৩,৬০০ টাকা।

ফ্যামিলি ডিলাক্স

ফ্যামিলি ডিলাক্স, ছবিঃ t-ec.bstatic.com

ফ্যামিলি ডিলাক্সের সুযোগ সুবিধাও ফ্যামিলি স্যুটের মতোই। এখানেও ফ্যামিলি স্যুটের মতো আছে দুটো বেডরুম যার একটিতে একটি কাপল বেড এবং অন্যটিতে রয়েছে সিংগেল বেড যা তিন জনের থাকার জন্য একদম যথাযথ। পুরো রুম টাইলস করা এবং জানালা দিয়ে বাইরের সৌন্দর্য দেখার ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই। তবে খুব সম্ভবত ডিলাক্স রুমগুলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয়। ফ্যামিলি ডিলাক্স রুমগুলোর প্রতিরাতের ভাড়া ২,৫০০ টাকা।

কাপল ডিলাক্স

কাপল ডিলাক্স, ছবিঃ exp.cdn-hotels.com

শ্রীমঙ্গলের অবিরাম সবুজতায় প্রিয়জনকে নিয়ে হারিয়ে যেতে বিশেষ করে দম্পতিদের জন্য এই রিসোর্টে অল্প টাকায় আছে কাপল ডিলাক্স রুমের ব্যবস্থা। ফ্যামিলি স্যুট এবং ফ্যামিলি ডিলাক্সের সাথে এই রুমগুলোর মূল পার্থক্য হচ্ছে বেডরুম সংখ্যায়।

ডাবল বেডের একটি বেডরুম নিয়েই এই রুমগুলো তৈরী করা। দুজন মানুষের জন্য পর্যাপ্ত জায়গা নিয়ে বানানো এই রুমগুলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত নয়, তবে টাইলস করা এবং ফ্যামিলি স্যুট এবং ফ্যামিলি ডিলাক্সের মতো বাকি সব সুবিধাই রুমগুলোতে আছে। কাপল ডিলাক্স রুমগুলোর প্রতি রাতের ভাড়া ২,১০০ টাকা।

ছবিঃ grandselimresort.com

এই ছিল রিসোর্টটির আদ্যোপান্ত। রিসোর্টটি দিনে দিনে জনপ্রিয়তা লাভ করছে বেশ ভালোভাবে। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে সিলেট বিভাগের জনপ্রিয় রিসোর্ট “গ্র্যান্ড সুলতান” এর সাথে গুণগত মানের লড়াইয়ে দাঁড়াবে আজকের দিনের গ্র্যান্ড সেলিম রিসোর্ট এন্ড ট্যুর। শ্রীমঙ্গলের নতুন এই রিসোর্ট নিয়ে লিখার ইচ্ছে ছিল আগে থেকেই, লোক মুখে প্রশংসা শুনেছি বহুবার।

লিখতে গিয়ে মনে হলো চা-বাগানে ঘেরা এই রিসোর্টে একবার না গেলেই নয়। আগামী শ্রীমঙ্গল ভ্রমণে এটিই হবে আমার আস্তানা, এসে না হয় আরেকটি লেখা লিখবো রিসোর্টের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে। ভ্রমণ হোক সুন্দর এবং উচ্ছল।

রিসোর্টের ওয়েবসাইট- grandselimresort.com
যোগাযোগ: 01709-883333, 01616-164066
ইমেইল: [email protected]

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সোনায় মোড়ানো সোনামার্গের পথে পথে

সিলেট ভ্রমণের ইতিবৃত্তান্ত: অপরূপা হামহামের জলকাব্য