চলো যাই মেঘ পাহাড়ের দেশ সাজেক ভ্যালীতে

এটি Tour Group BD এর একটি লাভজনক ইভেন্ট।

পাহাড় ও মেঘের টানে সাজেক ভ্রমণ।
বাংলাদেশের পাহাড়ি এলাকায় অল্পদিনের মধ্যে পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় ভ্রমণ-গন্তব্য হয়ে উঠেছে সাজেক। রাঙামাটি জেলার সর্বউত্তরে বাঘাইছড়ি উপজেলায় অবস্থিত এই ‘সাজেক ভ্যালি’র ওপারে ভারতের মিজোরাম রাজ্য আর এপাড়ে পাহাড়ের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের অপার লীলাক্ষেত্র এই এলাকা। ‘রুইলুই পাড়া’ এবং ‘কংলাক পাড়া’র সমন্বয়ে গঠিত সাজেক বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন, যার আয়তন ৭০২ বর্গমাইল।

বৃষ্টি নামা শুরু হয়েছে সাজেকের পাহাড়ে, শুরু হয়েছে বৃষ্টির রিমঝিম ধারা। ডানা মেলা মেঘ থেমে থেমে ঢেকে ফেলছে রুইলুই পাড়া। কখনো নামছে বৃষ্টি টিনের চালে যা বাজিয়ে চলে বাজনা। এমন দিনে মন কেবলই চায় হারিয়ে যেতে প্রকৃতির মাঝে। সময় হয়ে গেছে, পাহাড় তার প্রকৃত সবুজ গালিচার রুপ ধারন করার। চারদিকে পাহাড়ি ফুল ফুটে উঠবে, ঝর্ণাগুলো প্রস্তুতি নিচ্ছে তার যৌবন ফিরে পাওয়ার।

পাহাড় সবসময় কোন না কোনভাবে আপনাকে মুগ্ধ করবেই, তেমনি বর্ষাকালে হঠাৎ বৃষ্টির সাথে আবির্ভূত রংধনু অথবা ভরদুপুরে চারদিক আন্ধকারাচ্ছন্ন করে মেঘ ছুঁয়ে যাওয়া আপনাকে অনন্তকালের কোন কল্পনার আবেশে মুড়িয়ে দেবে। বর্ষা মৌসুমে মেঘের স্পর্শও মেলে এখানে। এই আমাদের মেঘের দেশ সাজেক।

এমন কিছু সময়ের সাক্ষী হওয়ার আশায় আমাদের সাজেকের উদ্দেশ্যে যাত্রা

৩০ আগস্ট ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে টিজিবির সাথে ঘুরে আসা যাক সাজেক ভ্যালী।

যাত্রার তারিখ ৩০ আগস্ট রাত ১০ টা ।
ফেরার তারিখ ২ আগস্ট সকাল ৫.৩০ মিনিটে (আনুমানিক)
প্যাকেজ প্রাইজ ৫,০০০/- পার পারসন । 
( কাপলদের ৫,৫০০ পার পারসন ) ।

সাথে পাচ্ছেন ট্যুর গ্রুপ বিডির একটি টি-শার্ট । 
বুকিং মানি ২,৫০০/-

মূল পরিকল্পনায় যা থাকছেঃ

৩০ তারিখ রাতে ফকিরাপুল থেকে খাগড়াছড়ির উদ্দেশ্যে যাত্রা

৩১ তারিখ অর্থাৎ প্রথমদিন আমরা খাগড়াছড়ি নেমে সকালের নাস্তা সেরে প্রথমেই চলে যাব হাজাছরা ঝর্ণা (আর্মিদের এসকর্ট এর উপর নির্ভর করবে), তারপর দুপুরের মধ্যে সাজেকে চেক ইন । 

সাজেকের উল্লেখযোগ্য পয়েন্টগুলো ঘুরব এবং এ দিন বিকেলেই গ্রুপ ছবি তুলব সবাই টিজিবির টি শার্ট পরে। এর পর টিজিবির নিজস্ব রিসোর্টের ওপেন স্পেসে গানের আসর, আড্ডা চলবে।

১ তারিখ অর্থাৎ ২য় দিন সকালে সাজেকে সূর্যোদয় দেখে চলে যাব কংলাক পাড়া। ফিরে এসে নাস্তা সেরে সকালের এসকর্ট এর সাথে চলে আসব খাগড়াছড়ি ।
দুপুরে খাবার খেয়ে চলে যাবো তেরাং এর পর আলুটিলা গুহা এবং এর পর হরটিকালচার পার্ক / রিসাং ঝর্ণা ।

রাতে খাগড়াছড়ির বিখ্যাত সিস্টেম রেস্টুরেন্টে খাবার খেয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হব।

২ সেপ্টেম্বর সকালে এসে অফিস ধরতে পারবেন।

আসন সংখ্যাঃ ২৪ 

যা যা থাকছে এর মধ্যেঃ
-৩১ তারিখ সকালের খাবার থেকে শুরু করে আসার দিন রাতের খাবার সহ প্রতিদিন ৩ বেলা খাবার । 
– ঢাকা -খাগড়াছড়ি- ঢাকা নন এ/সি বাস এর টিকেট
– চাঁদের গাড়ির (চান্দের গাড়ির) সকল খরচ
– রিসোর্টে থাকার খরচ
– সাজেক ঢোকার টিকেট
– বিখ্যাত সিস্টেম/ইজোর রেস্টুরেন্টে খাইদাই
– আলু টিলা প্রবেশ ফি এবং মশাল

যা থাকছে নাঃ
-কোন ব্যক্তিগত খরচ
-কোন ঔষধ

যা সাথে নেওয়া উচিতঃ
– রবি সিম । (যদিও এখন প্রায় সব সিমেই নেট পাওয়া যায়)
– মশা থেকে বাঁচার জন্য অডোমস
– গামছা নিবেন যেন রোদে মাথায় ঢেকে হাঁটা যায়
– বৃষ্টি হবার সম্ভাবনা অনেক বেশি, তাই বৃষ্টি থেকে নিজের ব্যাগ এবং অন্যান্য জিনিসপত্র বাঁচানোর জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে
– সানগ্লাস, হ্যাট, সান ক্রিম (যদি অতিরিক্ত ত্বক সচেতন হন)
– ব্রাশ, প্রয়োজনীয় ঔষধ
– মোবাইলের রেইন কভার (বৃষ্টি হলেও ভিডিও ও ছবি তোলার জন্য এবং মোবাইলের প্রোটেকশন এর জন্য)
– ক্যমেরা এবং এর এক্সট্রা ব্যাটারি
– চার্জের জন্য পাওয়ার ব্যাংক (সাজেকে বিদ্যুৎ নেই, তবে জেনারেটর আছে, তবে তা যথেষ্ট নয়)।

কনফার্ম করার আগে যে ব্যাপারগুলো অবশ্যই বিবেচনা করতে হবেঃ
* ট্রিপ কনফার্মেশন এর উপর ভিত্তি করে বাসের সিট এবং রিসোর্ট দেয়া হবে।
* যেহেতু ঈদের ছুটিতে বেশ রাশ থাকবে, সব কিছুতে সেক্রিফাইজিং মাইন্ড থাকতে হবে, একে অন্যকে সহায়তা করতে হবে।
* এই ট্রিপ এ মোটামুটি হাঁটতে হতে পারে বিভিন্ন যায়গায়, যদিও খুব বেশি নয়।
* এখানে এক রুমে ৪/৫ জন করে মিলে-মিশে থাকতে হবে, তবে অবশ্যই ছেলেদের এবং মেয়েদের আলাদা রুম হবে।
* কেউ আলাদা রুম নিতে চাইলে সেই ক্ষেত্রে কথা বলতে হবে আর জানাতে হবে আগে থেকেই, সম্ভব হলে করা হবে। অন্যথায় মেয়েরা আলাদা রুমে, ছেলেরা আলাদা রুমে থাকার ব্যবস্থা করা হবে।

টাকা পাঠানোর উপায় (ব্যাংকে লেনদেন সবচেয়ে সেইফ এবং আমরাও উৎসাহিত করি ব্যাংক এ লেনদেন করতে, তারচেয়েও সেইফ হচ্ছে অফিসে এসে টাকা জমা দিয়ে ট্রিপ কনফার্মেশন টোকেন নিয়ে যাওয়া)

অফিসের ঠিকানাঃ আমাদের অফিসের ঠিকানাঃ বিল্ডিং নাম্বার ২০, রোড নাম্বার ২,
জি ব্লক, এভিনিউ ২, লাভ রোড, স্পাইসি ফুড কর্ণারের তিন তলা
মিরপুর ২ (স্ট্যাডিয়াম এর তিন নাম্বার গেট এর উলটা দিকে, ন্যাশনাল প্রাথমিক বিদ্যালয়য়ের পাশে)

Tour Group BD
#16411026552
Dutch Bangla Bank Ltd.
(Mirpur Branch)

01840238946 (মার্চেন্ট একাউন্ট, এই নাম্বারে খরচ সহ পেমেন্ট অপশন থেকে টাকা পাঠিয়ে ট্রিপের কনফার্মেশন বুঝে নিবেন)

016731112379 DBBL রকেট একাউন্ট
(খরচ সহ পাঠাতে হবে)

ইভেন্টের হোস্টের কাছেও জমা দিতে পারেন।

শর্ত সমুহঃ
১- প্রথমেই একটি ভ্রমণ পিপাসু মন থাকতে হবে।
২- ভ্রমণকালীন যে কোন সমস্যা নিজেরা আলোচনা করে সমাধান করতে হবে।
৩- ভ্রমণ সুন্দর মত পরিচালনা করার জন্য সবাই আমাদেরকে সর্বাত্মক সহায়তা করতে হবে।
৪- আমরা শালিনতার মধ্যে থেকে সর্বোচ্চ আনন্দ উপভোগ করব।
৫- প্রতিটি যায়গাই আমাদের নিজেদের, তাই তার সৌন্দর্য রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। যেন টুরিসম এর কোন ক্ষতি না হয়, সেটা সর্বোচ্চ প্রাধান্য দিতে হবে।
৬- অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে যে কোন সময় সিদ্ধান্ত বদলাতে পারে, যেটা আমরা সকলে মিলেই ঠিক করব।
৭- স্থানীয়দের সাথে কোন রকম বিরূপ আচরণ করা যাবে না। নতুন কারো সাথে কথা বলার ক্ষেত্রে প্রয়োজনে ট্রিপ হোস্টের সহায়তা নিতে হবে।
৮- কোনভাবেই কোন প্রকার মাদক সেবন বা সাথে বহন করা যাবে না। সাথে পাওয়া গেলে তাকে বা তাদেরকে তৎক্ষণাৎ ট্রিপ থেকে বহিষ্কার করা হতে পারে গ্রুপের অন্য সবার সাথে সিদ্ধান্ত নিয়ে।
৯- দুর্ঘটনা বলে কয়ে আসে না তাই যে কোন প্রকার দুর্ঘটনা সকলে মিলে মোকাবেলা করতে হবে ।
১০- এই গ্রুপ সম্পূর্ণ ভ্রমণপিপাসুদের গ্রুপ। এখানে কোন প্রকার অশ্লীলতার কোন রকম সুযোগ নেই। কোন রকম অসৎ উদ্দেশ্যে যদি কেউ আমাদের সাথে ভ্রমণে যান, সেটি বুঝে যেতে আমাদের খুব বেশি সময় লাগে না। এবং সেই মোতাবেক আমরা ব্যবস্থা নিবো।

ভ্রমণের জন্য যে কেউ আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।
ছেলে/ মেয়ে সকলেই যেতে পারবে।

আমাদের গ্রুপ এর ঠিকানাঃ https://www.facebook.com/groups/TourgroupBd/
আমাদের পেজের ঠিকানাঃ https://www.facebook.com/TourgroupBd/

যোগাযোগ- ০১৮৪০২৩৮৯৪৬, ম্যানেজার। এটি আমাদের অফিসিয়াল নাম্বার, এই নাম্বারে যোগাযোগ করে জেনে নিবেন ট্রিপের বিস্তারিত, এবং কনফার্ম করতেও এই নাম্বারটিতে যোগাযোগ করুন। তবে ট্রিপ এর সকল তথ্য পড়েও কোন জিজ্ঞাসা বা কনফিউশন থাকলে নিম্নোক্ত নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারবেন
রিমন-০১৮১৯৮৭৮৩৪০
রাহি- ০১৭২৩৫৮৬৮৭৭ 
ইমরান- ০১৬৭৩১১১২৩৭

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজার বাড়ির পাশে কয়েক বছর

আবারো ফিরে আসা ঘুপচি গলির শহর কলকাতায়