হাদার বিবাহ বার্ষিকী ভ্রমণ!

জল-পাহাড় আর সবুজে ঘেরা রাঙামাটি। ছবিঃ i0.wp.com

হাদা পাহাড় খুব ভালোবাসে। ভালোবাসা বললে কমই বলা হবে, পাহাড়ের সাথে তার এতটাই সখ্য যে পাহাড়ের সাথে ওর প্রেম আছে বলেই পরিচিতজনরা বলে থাকে!

আর হাদার বৌ তো আরো এক কাঠি সরেস, সে পাহাড়কে হাদার প্রেমিকার থেকে আরেক ধাপ এগিয়ে হাদার সাথে পাহাড়ের পরকীয়ার নিষিদ্ধ সম্পর্কে রূপ দিলো!

পাহাড়ের অপার্থিব আকর্ষণ! রাঙামাটি। ছবিঃ abujarif.files.wordpress.com

হাদার মনে এ নিয়ে কোনো আক্ষেপ নেই। পাহাড়কে সে যে কতটা ভালোবাসে বা পাহাড়ের জন্য যে হাদা কতটা ব্যাকুল সেটা সবাই বুঝতে পারে, এই তৃপ্তি নিয়েই হাদার দিন কাটে। সময়-সুযোগ আর অর্থ হলেই হাদা পাহাড়ে হারিয়ে যায়, হুট-হাট!

সামনে হাদার বিবাহ বার্ষিকী। হাদার অনেক দিনের ইচ্ছে, বৌকে নিয়ে পাহাড়ে গিয়ে বিয়ে বার্ষিকী উদযাপনের। কিন্তু বৌকে সে কথা বলার তেমন সাহস নেই। নাহ, তার মানে এই নয় যে হাদা বৌকে ভয় পায়! তা নয় আদৌ, কিন্তু হাদার বৌ পাহাড় পছন্দ করে না, সেটা হাদা জানে। সেটা যতটা না পাহাড়কে অপছন্দ তার চেয়ে বেশী হাদা কেন পাহাড়কে এত ভালোবাসে, সেই হিংসায়! পাহাড়কে হাদার বৌ নিজের সতীন ভাবে। আর বলে পাহাড়ের সাথে হাদার পরকীয়া, নিষিদ্ধ সম্পর্ক! হাদা এসব শোনে আর মিটিমিটি হাসে। কোনো অভিমান বা অভিযোগ করে না কখনো।

হাদার বৌয়ের পছন্দ সমুদ্র-ঢেউ-বালুচর-বীচ-নীল জল-বৃষ্টি ভেজা বালুকা বেলা, বীচের নরম বালুতে হেঁটে বেড়ানো, ঢেউয়ের ছুটে আসা পানিতে পা ভেজাতে, জলকেলি করে উচ্ছ্বাসে হারাতে। যদিও হাদার বৌ কখনো পাহাড় দেখেনি, পাহাড় ছোঁয়নি, পাহাড়ের বাতাস গায়ে মাখেনি, পাহাড়ের ডাক শোনেনি, পাহাড় ঢেকে যাওয়া মেঘ দেখেনি, পাহাড়ের বুকে সুখের অশ্রু হয়ে ঝরে পড়া ঝর্ণা দেখেনি, অনেক অনেক কষ্ট করে কোনো পাহাড়ের চুড়ায় ওঠার যে কী সুখ সেটা কখনো অনুভব করেনি।

সমুদ্রের বালুকা বেলা। ছবিঃ poriborton.com

তাই হাদার খুব খুব ইচ্ছে বৌকে নিয়ে একবার পাহাড়ে যাবার। তারপর ফিরে এসে বৌকে জিজ্ঞাসা করার, যে তোমার কোনটা বেশী ভালো লেগেছে, পাহাড় না সমুদ্র? তুমি বেড়াতে গেলে কোনটা বেছে নেবে, পাহাড় না সমুদ্র? কিন্তু তেমন কোনো উপলক্ষ বা পরিস্থিতি কখনো তৈরি করতে পারেনি যে বৌকে নিয়ে হাদা পাহাড়ে যাবার প্রস্তাব দেবে!

এবারও তাই হলো, হাদার বৌ বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে সমুদ্রে যাবে, চুপচাপ সমুদ্রের ঢেউ আর নীল জলে নিজেকে সঁপে দেবে কয়েকটা দিন। সেইরকম ভাবেই নেয়া হলো সকল প্রস্তুতি। টিকেট কাটা হলো সেন্ট মারটিনের, বুকিং দেয়া হলো কটেজের, নেয়া হলো অফিস থেকে ছুটি। প্রস্তুতি নেয়া হলো অন্যান্য সকল কিছুর। সেন্ট মারটিনের উদ্দেশ্যে রওনা দেবার ঠিক আগের দিন বাঁধ সাধলো ঘূর্ণিঝড় “রুয়ানু”। আসলে বাঁধ সাধেনি “রুয়ানু”, এসেছিল হাদার কাছে আশীর্বাদ হয়ে! আসলেই তাই, যেটা হয়েছিল সমুদ্রের জন্য কষ্টের আর পাহাড়ের জন্য আনন্দের! কেন আর কীভাবে?

ঝড়ের পরে। ছবিঃ i.ytimg.com

যেহেতু সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন, ছুটিও নেয়া হয়েছে, সেহেতু সেন্ট মারটিন না হোক, কোথাও না কোথাও যেতেই হবে। কোথায় যাওয়া যায় আর কীভাবে যাওয়া যায় এই নিয়ে চলছিল আলাপ-আলোচনা।

আলোচনার মধ্যে ছিল কক্সবাজার, নাহ সে অনেক গিয়েছে হাদার বৌ, ওই ঘিঞ্জি জায়গায় এই লম্বা ছুটি কাটাতে কিছুতেই নয়!

বিছানাকান্দি, নাহ সে তো একদিনেই ঘুরে আসা যায়। এই লম্বা ছুটি চুপচাপ উপভোগের জন্য আদর্শ নয়!

হাদা কিছুটা সাহস করে প্রস্তাব দিল, তবে বান্দরবান? নাহ, কিছুতেই নয়! হাদার বৌয়ের সাফ জবাব। ওই পাহাড় আর বান্দরবান তোমাকে কেড়ে নিয়েছে আমার কাছ থেকে! তাই ওখানে কিছুতেই নয়! পাহাড় ছাড়া অন্য কিছু দেখ।

বিছানাকান্দির পথে। ছবিঃ লেখক

তবে খাগড়াছড়ি, সাজেক আর ছোট-ছোট সবুজ পাহাড়? নাহ, তাও হবে না। ওখানেও আছে তোমার প্রেয়সী আর আমার শত্রু সেই পাহাড়! আর সাজেক যে তোমার কতটা প্রিয় সে আমি জানি, তাই খাগড়াছড়িও বাদ!

হাদা এবার প্রস্তাব দিল, তবে রাঙামাটি? কিছুটা ভয়ে ভয়ে!

পাহাড় আছে কি ওখানে?

না নেই, একেবারেই নেই! 

তবে কী আছে?

আছে টিলা ছোট-ছোট! তার উপরে কটেজ, সবুজে ছাওয়া, ছায়ায় ঘেরা, বাতাসে হৃদয় নাড়িয়ে যাওয়া! হ্রদের জল, মৃদু ঢেউ, সবকিছু মিলে ভীষণ মনকাড়া! যাবে ওখানে?

খাগড়াছড়ি। ছবিঃ লেখক

ঠিক আছে তবে, তাই চল। শুধু পাহাড় না থাকলেই হলো! তখন তুমি আমাকে ভুলে যাবে, হারাবে পাহাড়ে পাহাড়ে!

হাদা তাই এবার সব কিছু পরিবর্তন করে বেছে নিল রাঙ্গামাটিকে। রওনা হলো রাঙ্গামাটির দিকে। পথে শুরু হলো ভীষণ ভীষণ ঝড়-বৃষ্টি। বাস চলছে খুব ধীরে ধীরে। ভয়ে ভয়ে খুব সকালে ওরা পৌঁছে গেল রাঙামাটি। বৃষ্টি যে শুরু হয়েছিল আগের দিন রাতে, তা ঝরে চলেছে অবিরত করে সব কিছু স্যাঁতসেঁতে!

বাস থেমেছিল এক পাহাড়ের পায়ের তলায়! আর ঝরছিল বৃষ্টি অঝোর ধারায়, তাই রক্ষে! নইলে হাদার বৌ টের পেয়ে যেত যে এটাও পাহাড় বেষ্টিত এক শহর! ওরা পাহাড়েই এসেছে! বৃষ্টির ছাট থেকে রেহাই পেতে ওরা টুপ করে ঢুকে গিয়েছিল এক চায়ের দোকানে। হাদা একটি সিএনজি এনে উঠে বসলো বৌকে নিয়ে। দুইপাশে ঢেকে দিল পর্দা দিয়ে, বৃষ্টির ছাট থেকে ভিজে যাওয়া ঠেকাতে। আসলে তার চেয়েও বেশী পাহাড়ের আঁকাবাঁকা পথ যেন বৌয়ের চোখে না পড়ে সেই কারণে! পৌঁছে গেল ওদের নির্ধারিত পর্যটন মোটেলের নির্ধারিত কামরায়।

ব্যস হাদা এবার অনেকটা নিশ্চিন্ত, এসে তো পড়েছে, পাহাড়ে এসেছে বুঝতে পারলেও এখনি তো আর যেতে পারবে না বাস ধরে! সেই ভরসায়। এরপর শুরু হলো ঝড়-বৃষ্টি-বাতাস-গাছপালা উড়িয়ে নিয়ে যাবার মতো ঘূর্ণিঝড়! দরজা-জানালা পর্যন্ত খোলা যায় না। ভরসা কাঁচের জানালা দিয়ে বাইরের বাতাস-বৃষ্টি আর হ্রদের পানিতে ছোট-ছোট ঢেউ দেখা। আর একটু পরপর চা ও শুকনো খাবার উপভোগ করা।

ঝড়ের পরে রাঙামাটি। ছবিঃ newschittagong24.com

এভাবে কিছু দেখা, কিছু ঘুম, কিছু জাগরণে কেটে গেল সারাদিন। শেষ বিকেলে ধরে এলো বৃষ্টি কিছুটা। পাহাড়ের আঁকাবাঁকা আর উঁচু-নিচু পথে ঝরে পড়া ডাল-লতা-পাতা-জংলী ফুলের কুড়ি-উড়ে এসে পড়ে থাকা রঙিন ফুলের পাপড়ি, টসটসে পাকা কালো জামের টকটকে লাল রঙের বৃষ্টির পানিতে ছড়িয়ে পড়া, সবুজ ঘাসে-ঘাসে বৃষ্টির পানির জমে থাকা, কটেজের চারপাশ ঘিরে কাঠ গোলাপ-গন্ধরাজ-জুই-করবী- বেলির সমারোহ আর মাতাল বাতাসে ছড়িয়ে পরা সেইসব ফুলের ঘ্রাণ পাগল করে তুলেছিল মন-প্রাণ! বাতাসের আচমকা ঢেউয়ে গাছের পাতায়-পাতায় জমে থাকা পানির ঝরে পড়াতে ভিজে যাওয়া, পাশে ঢেউ তোলা হ্রদ, দূরে দাঁড়িয়ে থাকা মেঘে ঢাকা পাহাড়! উহ সবকিছু মিলে সে এক অপার্থিবতা!

এসব দেখে-ছুঁয়ে আর উপভোগ করে, হাদার বৌয়ের চোখে-মুখে খুশির ঝিলিক! আর তাই দেখে হাদার এক অন্যরকম পূর্ণতা আর প্রাপ্তির আনন্দ!

শুভলং রাঙামাটি। ছবিঃ tour.com.bd

সেদিন আর কোথাও যাওয়া হলো না, আবারও ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়ে যাওয়ায়। তাই অপেক্ষা পরদিন সকালের। পরদিন সকালে ওরা ঝরা পাতায় সেজে থাকা পাহাড়ি আঁকাবাঁকা রাস্তা ধরে হেঁটে চলেছে, ঝুলন্ত ব্রিজের দিকে আর হ্রদের কিনারে, বোটে করে শুভলং যাবে। বোট ঠিক করে ওরা চড়ে বসলো হ্রদের নরম ঢেউহীন জলে।

রাঙামাটি শহর ছেড়ে কিছুদূর যেতেই ওদের বোট একেবেঁকে বাঁক নিল ডানে। দুই পাশে খাড়া পাহাড়, কোথাও সবুজ, কোথাও রুক্ষ, কোথাও পাথুরে, মাঝে স্বচ্ছ ঢেউহীন টলটলে জল, দূরে মেঘ-আকাশের মিতালী, বুনো ফুলের হাসি, সাদা বকের উড়ে চলা, ডাহুকের আহ্বান! গাছে-গাছে পেকে থাকা পেঁপে-কাঁঠাল-কলার আর আমের নিখাদ নিমন্ত্রণ!

সেই সবকে উপেক্ষা করা সম্ভব ছিল না কিছুতেই, তাই বোট থামিয়ে নেমে পড়া। সেখানেই চ্যাং-প্যাং বা এমনই একটি খটমট নামের রেস্টুরেন্টে দুপুরের খাবারের অর্ডার দেয়া। বাঁশের ভেতরে মুরগী রান্না, কাপ্তাই লেকের তাজা মাছ আর জুম চালের ভাত।

এখানে খাবার খেতে নেমেছিলাম। ছবিঃ http://probashnews.com

এক উঁচু পাহাড়ের চূড়ায়, বাসের মাচায় বসে পা দুলিয়ে দুলিয়ে রসালো ফলের আস্বাদনে আপ্লুত ওরা। দূর থেকে ভেসে আসা লেকের বাতাস, মায়াবী জলের খেলা, ছোট-ছোট ডিঙি নৌকায় জেলেদের মাছ ধরা, ঢেউ ছড়িয়ে ছুটে চলা নৌবাহিনীর স্পীড বোট, হ্রদের মাঝে মাঝে জেগে থাকা পাহাড়ের চূড়া! তিন পাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সবুজ পাহাড়, গাছে গাছে ফুল-ফলের রঙ-রূপ আর মাতাল করা গন্ধ! সেই সব দেখে-শুনে আর হারিয়ে গিয়ে হাদার বৌ নিজের অজান্তেই বলে ফেলল-

এখানে এই পাহাড়ের চূড়ায় বসেই কাটিয়ে দেয়া যাবে কয়েকটি দিন, শুধু বসে বসে আর তাকিয়ে থেকে ওই হ্রদ ও পাহাড়ের দিকে, বুক ভরে নিয়ে বিশুদ্ধ বাতাস, পা দুলিয়ে এই বাসের মাচায়, হাত রেখে তোমার হাতে আর মাথা রেখে তোমার কাঁধে!

হাদা হতবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করলো, কেন তোমার সমুদ্র? তবে তার কী হবে?

আরে ধুর সমুদ্র! ওর দেখার কী আছে? শুধু পানি আর ঢেউ! আর কী আছে বলো?

পাহাড়ের চূড়ায় বসে কাপ্তাই লেক। ছবিঃ i1.wp.com

হাদা তার বৌয়ের এই কথাশুনে হাঁদারাম হয়ে গেল, বিস্ময়ে! আর মনে মনে বলল খাগড়াছড়ি আর বান্দরবান তো পড়েই রইলো, এই রাঙ্গামাটির টিলাময় পাহাড় দেখেই এই অবস্থা! আর দার্জিলিং-শিমলা-মানালি-নেপাল-ভুটান? সে তো অসীম আকর্ষণের!

তাই তো হাদা তার বৌয়ের কথা শুনে আর হাদার বৌয়ের পাহাড়কে ভালোবেসে আপন করে নেয়ার আনন্দে! হাদা মনে মনে বলল বা নাম দিল-

“সমুদ্রের কষ্ট আর পাহাড়ের আনন্দ!”

Loading...

One Ping

  1. Pingback:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বোটানিক্যাল গার্ডেন মিরপুর:দেখেছ কি দু'চোখ মেলিয়া? 

প্রেয়সীর কাছে অনুযোগের চিঠি