ঈদের ছুটিতে মেঘ রাজ্য সাজেক ভ্রমণ

রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন সাজেক। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপার লীলাভূমি এটি। এখানকার বিজিবি’র ক্যাম্প ও এর আশেপাশের এলাকা সত্যিই মনোমুগ্ধকর। সকালে ঘুম থেকে উঠে চোখ খুললেই মনে হবে, মেঘের চাদরে ঢাকা রয়েছে এই সাজেক। আকাশের মেঘগুলো যেন উড়ে উড়ে এসে বসেছে পাহাড়ের এক একটা কোলে। আর সকাল-সন্ধ্যা প্রায় সময়ই মেঘের খেলা যা সাজেকের সবচেয়ে অন্যতম আকর্ষণ। আপনার চোখ যেদিকে যাবে, দেখবেন শুধুই মেঘ আর রংয়ের খেলা। মনে হয় প্রাকৃতিক নিসর্গ সাজেক হাতছানি দিয়ে ডাকছে।

আনুমানিক প্লান
২৩ আগস্ট – ঢাকা থেকে রাতে যাত্রা শুরু।

২৪ আগস্ট – খাগড়াছড়ি পৌঁছে সকালের নাস্তা করে হাজাছড়া ঝর্নায় ঝাপাঝাপি করে ১০টার আর্মি এসকর্টে জীপে করে সাজেকের উদ্দেশ্যে রওনা দিব সাজেকে। দুপুরের লাঞ্চ করে রুমে বিশ্রাম নিয়ে চলে যাবো সাজেক হেলিপ্যাড। সেখান থেকে দেখবো সূর্যাস্ত দেখে চলে আসবো রুইলুই পাড়া। ব্যাম্বো চিকেন/ বারবিকিউ দিয়ে ডিনার করে চলে যাবো কটেজে। সেখানে গান এবং আড্ডা করে কোটেজে শেয়ার বেসিসে ঘুমিয়ে পড়বো।

২৫ আগস্ট – খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে যাবো কংলকপাড়া সেখান থেকে দেখবো সূর্যোদয়। সাজেক ঘুরে দেখবো সেখানকার পাহাড় ও জনজীবন দেখে চলে আসবো রুইলুই পাড়া। সকালের নাস্তা করে ১০টার এসকর্টে গাড়িতে চলে যাবো খাগড়াছড়ি। আলুটিলা গুহা এবং তেরাং মেঘ ভিউ – ঝুলন্ত ব্রিজ ঘুরে খাগড়াছড়ি শহরে হোটেলে রুম নেয়া হবে সবাই ফ্রেশ হয়ে বিশ্রাম নিয়ে রাতের ডিনার করে রাতের বাসে ঢাকা রওনা দিবো।

২৬ আগস্ট – সকাল ৬/৭টায় ইনশাল্লাহ ঢাকা চলে আসবো।

ভ্রমণ খরচ: ৪,৫০০ টাকা জনপ্রতি।
১ রুমে ৪ জন শেয়ার করে থাকতে হবে।

কাপল খরচ: ৫,৫০০ টাকা জনপ্রতি।

কনফার্ম করার জন্য ২,০৪০ টাকা বিকাশ করতে হবে।
বিকাশ করে অবশ্যই ফোন করে জানাতে হবে বা ইভেন্ট পোস্টে জানাতে হবে।
বিকাশ নাম্বার :
Sahyed Rubel : ০১৯১১২৪৯৪৭০
০১৮৭৩২৪৯৪০

কেউ যদি হাতে হাতে টাকা দিতে চান তা হলে এডমিনের সাথে দেখা করে ২০০০ টাকা দিয়ে কনফার্ম করতে পারবেন।

অফিস ঠিকানা — এফ ৯/৮ প্রগতি শরণী মেরুল বাড্ডা ৪র্থ তলা , 
ঢাকা ১২০৪। 

যা যা পাচ্ছেনঃ

(১) ঢাকা-খাগড়াছড়ি-ঢাকা নন এসি বাসের টিকিট।

(২) ২ দিন রিজার্ভ জীপ গাড়ি দিয়ে ঘোরা।

(৩) ১ রাত সাজেকে নীলকুটির-জুমঘর-রুইলুই এবং ঝিঝি পোকার বাড়ি কটেজে রাত্রী যাপন।

(৪) ২য় দিন — সকালের নাস্তা — ২ পিস পরাটা — ডাল ভাজি — ডিম মামলেট — চা।

দুপুরের খাবার — দেশি মুরগি — ভর্তা — ডাল — ভাত।

রাতের খাবার — 
চিকেন বার-বি-কিউ — পরাটা — সালাদ — ড্রিংক।

৩য় দিন– সকালের নাস্তা — খিচুরি ডিম।

 দুপুরের খাবার — দেশি মুরগি — ফিস ফ্রাই –শবজি — ভর্তা — ডাল — ভাত।

রাতের খাবার — ব্যাম্বো চিকেন — শবজি — ভর্তা — ডিম হ্যাবেং — ডাল– ভাত — মিষ্টি।

বিশেষ অাকর্ষন: রাতের তারাগুলোর সাথে যখন ফানুষগুলো পাল্লা দিবে তখনি আপনার সামনে জ্বলে উঠবে বার-বি-কিউ এর আগুন। তারপরে আড্ডা আর আড্ডা।
আর কী চাই ??

ভ্রমন স্থানঃ
১.সাজেক 
২.আলুটিলা গুহা
৩. কংলাকপাড়া
৪. রুইলুই পাড়া 
৫.তারেং
৬.হাজাছড়া ঝর্না
৭.জেলা পরিশোধ পার্ক ঝুলন্ত ব্রিজ

বিশেষভাবে লক্ষনীয়
১- একটি ভ্রমন পিপাসু মন থাকতে হবে।
২- ভ্রমনকালীন যে কোন সমস্যা নিজেরা আলোচনা করে সমাধান করতে হবে।
৩- ভ্রমন সুন্দমত পরিচালনা করার জন্য সবাই আমাদেরকে সর্বাত্মক সহায়তা করবেন আশা রাখি।
৪- আমরা শালীনতার মধ্য থেকে সর্বোচ্চ আনন্দ উপভোগ করব।
৫-অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে যে কোন সময় সিদ্ধান্ত বদলাতে পারে, যেটা আমরা সকলে মিলেই ঠিক করব।
৬- বাংলার অভিযাত্রী ইকো টুরিজম এ বিশ্বাসী, টুরে যেয়ে প্রকৃতির কোন রকম ক্ষতি আমরা করবনা। কোন অপচনশীল বর্জ্য যেমন প্লাস্টিক প্যাকেট, বোতল যেখানে সেখানে না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলব ও ক্ষেত্রবিশেষে সাথে করে নিয়ে আসব। স্থানীয় জনবসতির সাথে বন্ধুত্বপূণ আচরন করব এবং যথোপযুক্ত সস্মান প্রদর্শন করব।
৭- কোন প্রকার মাদক দ্রব্য বহন বা সেবন করা যাবে না।

আমরা সবাই প্রকৃতি মায়ের সন্তান; এর হেফাজতের দায়িত্ব আমাদের সবার।

ভ্রমনের জন্য যে কেউ আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।
ছেলে/মেয়ে সকলেই যেতে পারবেন।

যোগাযোগ :
Sahyed Rubel : 01911249470
: 01873249470

বাংলার অভিযাত্রী গ্রুপের সাথে থাকুন
https://www.facebook.com/groups/759507837518005/

বাংলার অভিযাত্রী পেজ লিঙ্কঃ
https://www.facebook.com/Banglar-Ovijatri-বাংলার-অভিযাত্রী-1679428202310

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ঈদের ছুটিতে বগালেক, কেওক্রাডং এবং বরবগ ঝর্না

ঈদের ছুটিতে টাঙ্গুয়ারে হাওর বিলাস