চন্দ্রনাথ,পাতালকালি মন্দির, সুপ্তধারা সহস্রধারা,গুলিয়াখালি ভ্রমণ

সীতাকুণ্ড অপরূপ প্রাকৃতিক সৌর্ন্দয্যের লীলাভূমি। এ এলাকা শুধু হিন্দুদের বড় তীর্থস্থানই নয় খুব ভাল ভ্রমণের স্থানও বটে। সীতাকুণ্ডের পূর্বদিকে চন্দ্রনাথ পাহাড় আর পশ্চিমে সুবিশাল সমুদ্র। সীতাকুণ্ড এবং এর আশেপাশে বেশ কিছু ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থান রয়েছে। এসব স্থানের মধ্যে চন্দ্রনাথ পাহাড়ে ৩৫০ মিটার উঁচুতে অবস্থিত চন্দ্রনাথ মন্দিরের গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি।

এই মন্দিরটি যেমন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য একটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ স্থান তেমনি পর্যটকদের কাছেও এটি বেড়ানোর জন্য একটি আকর্ষণীয় স্থান। শক্তি পিঠের জন্য এই মন্দিরের খ্যাতি রয়েছে। প্রতি বছর সারাদেশ থেকে লক্ষ লক্ষ হিন্দু ধর্মাবলম্বী এই মন্দিরে শিব চাটুরদাশি পূজায় অংশ নিতে আসেন।

চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলার ঐতিহ্যবাহী চন্দ্রনাথ রির্জাভ ফরেস্ট ব্লকের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে সুশোভিত চিরসবুজ বনাঞ্চলের সীতাকুণ্ড ইকোপার্কে সহস্রধারা ঝর্ণাটি অবস্থিত। ইকোপার্কটি চট্টগ্রাম শহর থেকে ৩৫ কি.মি. উত্তরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক এবং রেলপথের পূর্ব পাশে অবস্থিত। বর্ষাকাল ছাড়া বছরের বাকি সময় এই ঝর্ণায় পানি অনেক কম থাকে। বর্ষাকালে ঝর্নাটিকে পানিতে পরিপূর্ণ অবস্থায় দেখতে পাবেন এবং ঝর্ণার সৌন্দর্য পুরোপুরি উপভোগ করতে পারবেন। এই ঝর্ণাটির খুব কাছেই আরেকটি ঝর্ণা রয়েছে যা সুপ্তধারাঝর্ণা নামে পরিচিত।

গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত (Guliakhali Sea Beach) চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলায় অবস্থিত। স্থানীয় মানুষের কাছে এই সৈকত মুরাদপুর বীচ নামে পরিচিত। অনিন্দ্য সুন্দর গুলিয়াখালি সী বিচকে সাজাতে প্রকৃতি কোনো কার্পণ্য করেনি। গুলিয়াখালি সৈকতকে ভিন্নতা দিয়েছে সবুজ গালিচার বিস্তৃত ঘাস। সাগরের পাশে সবুজ ঘাসের উন্মুক্ত প্রান্তর নিশ্চিতভাবেই আপনার চোখ জুড়াবে।

আমরা যা যা দেখার চেষ্টা করবো

  • চন্দ্রনাথ মন্দির
  • পাতালকালি মন্দির
  • সুপ্তধারা ঝর্ণা 
  • সহস্রধারা ঝর্ণা
  • গুলিয়াখালি সৈকত

আনুমানিক প্ল্যান

১৩ তারিখ রাতের বাসে সরাসরি সীতাকুন্ড এর উদ্দেশ্যে যাত্রা। ভোরে নেমে নাস্তা করে সরাসরি চলে যাবো চন্দ্রনাথ মন্দিরের দিকে। সময় সাপেক্ষে ঘুরে দেখবো পাতালকালি মন্দিরও। এর পর সীতাকুন্ড এসে চলে যাবো সীতাকুন্ড ইকোপার্কে। ওখানে আমরা দেখবো সুপ্তধারা ও সহস্রধারা ঝর্ণা। ঝর্ণা দেখে সীতাকুন্ড ফিরে এসে দুপুরের খাবার খেয়ে আমরা চলে যাবো গুলিয়াখালি সৈকত দেখতে। বিকেলটা ওখানেই কাটিয়ে আমরা রাতের খাবার খেয়ে রওনা দেবো ঢাকার উদ্দেশ্যে। খুব ভোরে অথবা মাঝরাতেই আমরা ঢাকা থাকবো ইনশাল্লাহ।

ইভেন্ট ফি : ১,৮০০ টাকা

কনফার্মেশনের শেষ সময় : ১০ সেপ্টেম্বর

কনফার্ম করার নিয়ম
আপনি যদি যেতে ইচ্ছুক হোন তাহলে আমাদের কাছে ১,০২০ টাকা [ অফেরতযোগ্য ] বিকাশ অথবা হাতে হাতে দেখা করেও জমা দিতে পারেন। বিকাশ এবং বিস্তারিত জানতে ০১৬২৫১১৪০২০, ০১৯১১২৭১৯০৭ এই নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন।

এই ফি-তে যা যা থাকছে 

  • ঢাকা-সীতাকুন্ড-ঢাকা নন এসি বাসে আসা যাওয়ার খরচ
  • ট্রীপ চলাকালীন প্রতি বেলা মূল খাবার খরচ
  • সকল প্রকার গাইড খরচ
  • সকল প্রকার লোকাল ট্রান্সপোর্ট খরচ

হাইওয়ে নাস্তা এবং যে কোনো ব্যক্তিগত খরচ এই ইভেন্ট ফির অন্তর্ভূক্ত নয়।

ট্রীপে যা করনীয়

  • ভ্রমণের জন্য উপযোগী পোশাক পরতে হবে।
  • কারো সাথে কোনো ধরণের খারাপ ব্যবহার করা যাবে না। 
  • যে কোনো ধরণের অসুবিধায় এডমিনদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। 
  • সময়ের দিকে খেয়াল রেখে ঘোরাফেরা করতে হবে।
  • অযথা সময় ক্ষেপন করা যাবে না।
  • অযথা হৈ চৈ করে অন্যকে বিরক্ত করা যাবে না।
  • যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা ফেলা যাবে না। 
  • সাথে রেইন কোট বা ছাতা রাখতে পারেন।
  • ব্যাগের ভেতরে প্রয়োজনীয় জিনিস পলি করে রাখতে পারেন। 
  • খাবার দাবার এর সময় এদিক সেদিক হতে পারে, এটা নিয়ে কোনো উজর আপত্তি করা যাবেনা।
  • যে কোনো কাজে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। 
  • সহনশীল মনোভাব দেখাতে হবে। 
  • কোনো ধরনের মাদক বা নিষিদ্ধ কোনো বস্তু বহন করা যাবে না।
  • ভোটার আইডি কার্ড অথবা যে কোনো ফটো আইডি এর ফটোকপি ২ কপি এবং মূল কপি অবশ্যই সাথে রাখতে হবে। 
  • ফার্ষ্ট এইড হিসেবে ওয়ান টাইম ব্যান্ড এইড, তুলা, গজ, স্যাভলন ক্রিম, মুভ মলম অথবা স্প্রে, প্যারাসিটামল, গ্যাষ্ট্রিকের ঔষধ, স্যালাইন ইত্যাদি সাথে রাখতে পারেন।
  • ড্রাই ফুড হিসেবে চকোলেট, ক্যান্ডি, বিস্কুট, ম্যাংগোবার ইত্যাদি সাথে রাখবেন।
  • একটা ছোট ডে ব্যাগ সাথে রাখবেন ।
  • অবশ্যই ১ লিটার এর দুইটা পানির বোতল সাথে রাখবেন। 
  • আপনি যদি যে কোনো ব্যাপারে খুঁতখুঁত বা অভিযোগ প্রবণ হন তাহলে এই ট্রীপ আপনার জন্য নয়।

ইভেন্ট কভারে ব্যাবহৃত ছবি সংগৃহিত

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

চুপিচুপি টাইগার হিল থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘার রুদ্ধশ্বাস রূপ অবলোকন

নাজিমগড়: পাহাড়ের পাদদেশে নান্দনিক এক রিসোর্ট