ভারতের শ্রেষ্ঠ সমুদ্র সৈকতগুলো সম্পর্কে জেনে নিন এখনই

ভারতের সমুদ্র সৈকতগুলোর সম্মিলিত দৈর্ঘ্য প্রায় ৭,৫০০ কিমি.। বিস্তৃত এই সৈকতগুলোর প্রত্যেকটিরই আছে একটি নিজস্ব আবেদন। এই লেখায় থাকছে ভারতের ১৫টি চোখ ধাঁধানো সৈকতের কথা।

১. চক্রতীর্থ সৈকত, গুজরাট:

গুজরাটের এই সৈকতের দেখা মিলবে শহরতলীর আঙিনা পেরুলেই। নারী দর্শনার্থীদের জন্য এই সৈকতটি আদর্শ এক জায়গা। দিনের অধিকাংশ সময় ধরে জনশূন্য থাকলেও চক্রতীর্থ সৈকতে নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত হতে হয় না একদমই। 

চক্রতীর্থ সৈকত, ছবিঃ hellotravels.com 

২. চৌপাটি সৈকত, মুম্বাই:

চৌপাটি সৈকত বিকেল থেকেই লোকে লোকারণ্য হতে শুরু করে। এখানকার সমুদ্রের পানিতে তেমন আকর্ষণ নেই। বাচ্চা থেকে বুড়ো, সবাই এখানে আসেন মূলত ভেল পুরি বা আইসক্রিম খেতে খেতে তাজা বাতাস বুকে টেনে নিতে। শহুরে কর্মব্যস্ততার অস্থিরতা থেকে মুক্তি দিয়ে চৌপাটি সৈকত মুম্বাইবাসীর মনকে করে প্রশান্ত। তরুণ-তরুণীরাও নিয়মিত ছুটে আসেন এখানে।  

চৌপাটি সৈকত, ছবিঃ hellotravels.com 

৩. অঞ্জুনা সৈকত, উত্তর গোয়া:

এই সৈকতের উত্তর থেকে দক্ষিণের দিকে গেলে পাওয়া যাবে প্রাণের আমেজ। নাইট লাইফের জন্য এর সুনাম আছে কিছুটা। ভারতের জনপ্রিয় ডিজেদের অনেককেই এখানে প্রায়ই দেখতে পাওয়া যায়।

অঞ্জুনা সৈকত, ছবিঃ a1journey.com

৪. মরজিম সৈকত, উত্তর গোয়া:

বিভিন্ন প্রজাতির পাখি দেখার জন্য এই সৈকতটি শ্রেষ্ঠ। জেলেরা বিশাল সব সামুদ্রিক মাছ ধরার পর খুব ভোরে এখানেই তাদের নৌকা ভেড়ায়। এই দৃশ্য দেখতে হলে আপনাকে খুব ভোরে উঠেই চলে আসতে হবে এখানে।

মরজিম সৈকত,  ছবিঃ goatravels.com 

৫. মান্দ্রেম সৈকত, উত্তর গোয়া:

অলিভ রিডলি মেরিন প্রজাতির বিশেষ ধরনের কচ্ছপ আর সাদা পেটের মাছ শিকারী ঈগলের আবাস্থল এই সৈকত আর এর পার্শ্ববর্তী সবুজে ঘেরা বন। একাকী নির্জন কিছুটা সময় কাটাতেও পর্যটকেরা এখানে এসে থাকেন।

মান্দ্রেম সৈকত, ছবিঃ goatrvels.com 

৬. অরম্বল সৈকত, উত্তর গোয়া:

এই সৈকতটি এর স্যুভনির শপ, ইন্টারনেট ক্যাফে আর রেস্টুরেন্টগুলোর জন্য বেশ পরিচিতি লাভ করেছে। সৈকতের সংলগ্ন এলাকাটি সাজানো গোছানো ছবির মতো সুন্দর একটি জায়গা। সূর্যাস্ত দেখার জন্যও অরম্বল সৈকত পর্যটকদের বাকেট লিস্টের প্রথম দিকেই থাকে। 

অরম্বল সৈকত, ছবিঃ goatrabels.com 

৭. পালোলেম সৈকত, দক্ষিণ গোয়া:

পালোলেম গোয়ার অন্যতম বিখ্যাত সৈকত। মারগাও থেকে মাত্র ২০ কিমি. দূরে এর অবস্থান। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পর্যটকদের কাছে সৈকতটি বেশ জনপ্রিয়। নভেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত এখানকার পর্যটন মৌসুমে অসংখ্য পর্যটক ভিড় জমান এখানে। পালোলেম এর পাহাড় আর বনও পর্যটকদের পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে।

পালোলেম সৈকত, ছবিঃ traveltriangle.com

৮. বেনাউলিম সৈকত, দক্ষিণ গোয়া:

কম খরচে ভালো মানের অসংখ্য হোটেল আর রিসোর্টের জন্য বেনাউলিম সৈকতের সুনাম আছে পুরো গোয়া জুড়েই। প্রথমবারের মতো গোয়ায় এলে থাকার জন্য আপনি চোখ বন্ধ করে বেছে নিতে পারেন বেনাউলিম সংলগ্ন এই হোটেল বা রিসোর্টগুলোকে। এদের সেবার মানও উঁচু।

বেনাউলিম সৈকত, ছবিঃ goatravels.com 

৯. মেরিন প্যারেড সৈকত, উড়িষ্যা:

পরিচ্ছন্নতার দিক থেকে মেরিন প্যারেড সৈকত অবস্থান করছে ওপরের দিকে। সৈকত ধরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আনমনা হয়ে হেঁটে যেতে পারেন আপনি। তবে সাঁতার কাটার জন্য সৈকতটি সুবিধাজনক নয়। সাগরের ঢেউ এদিকটায় বেশ শক্তিশালী হওয়ায় প্রায় প্রতি বছরই কেউ না কেউ পানিতে তলিয়ে যান এখানে।

মেরিন প্যারেড সৈকত, ছবিঃ traveltriangle.com

১০. মেরিনা সৈকত, চেন্নাই:

মেরিনা সৈকত স্থানীয়ভাবে কামারাজ সালাই নামেও পরিচিত। এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় শহুরে সৈকত বা সিটি বিচগুলোর মধ্যে অন্যতম। বিখ্যাত স্যুভনির শপ আর সৈকত সংলগ্ন বাজারের জন্য। তবে শহরের খুব কাছে হওয়ায় মানুষ ময়লা আবর্জনা ফেলে নোংরা করে রেখেছে সৈকতটিকে।

মেরিনা সৈকত, ছবিঃ chennai.com

১১. লাইটহাউজ সৈকত, কোভালাম:

সৈকতের দক্ষিণে একটি লাইট হাউজ থাকায় এই সৈকত লাইটহাউজ নামে পরিচিতি পেয়েছে। যথেষ্ট সুন্দর একটি সৈকত এটি। পুরো সৈকত সংলগ্ন এলাকা জুড়ে আছে অসংখ্য হোটেল আর রিসোর্ট। এছাড়াও এই সৈকতের লাইট হাউজটির মোট ১৪২টি সিঁড়ি পেরিয়ে এর অবসারভেশন প্ল্যাটফরমে পৌঁছে গেলে আপনার চোখে ধরা দেবে মনোরম সব দৃশ্য।

লাইটহাউজ সৈকত, ছবিঃ hellotravels.com 

১২. পাপানাসাম সৈকত, ভারকালা:

অসাধারণ সুন্দর ভারকালার এই সৈকতটি। স্থানীয় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পূজা অর্চনার জন্য নিয়মিত এসে থাকেন এখানে। সান বাথিংয়ের ক্ষেত্রে তাই এখানে কিছুটা কড়াকড়ি আছে । সৈকতের দক্ষিণ দিকে সি ওটারদের দেখা পাওয়া যায়।

পাপানাসাম সৈকত, ছবিঃ hellotravels.com

১৩. চেরাই সৈকত, কচি, কেরালা:

এই সৈকতটির সাথে আমাদের দেশের সেন্ট মার্টিনসের কিছুটা মিল আছে। পর্যটকদের কাছে এখনো ততটা জনপ্রিয় হয়ে না ওঠায় এই সৈকতটি নিরিবিলি সময় কাটানোর জন্য বেশ উপযুক্ত। এখনো সেভাবে হোটেল বা রিসোর্ট গড়ে ওঠেনি এখানে। নির্মল প্রকৃতি আর সাগরের সান্নিধ্য পেতে তাই বেছে নিতে পারেন চেরাই সৈকতকে।

চেরাই সৈকত, ছবিঃ tripadvisor.com

১৪. উল্লাল সৈকত, ম্যাংগালোর:

কর্ণাটকের বন্দর নগরী ম্যাংগালোরের উল্লাল সৈকতটি সূর্যাস্ত দেখার জন্য বিখ্যাত। এটিও মোটামুটি জনশূন্য সৈকতগুলোর একটি। তবে এখানে সাঁতার কাটা বিপদজনক। প্রকৃতি দর্শনে সীমাবদ্ধ থাকাটাই উচিৎ হবে তাই।

উল্লাল সৈকত, ছবিঃ tripsdvisor.com 

১৫. কুদলি সৈকত, কর্ণাটক:

প্রায় ১ কিমি. দীর্ঘ এই সৈকতটিকে ঘিরে গড়ে উঠেছে বেশ কিছু ভালো মানের রেস্টুরেন্ট। আয়েশ করে সময় কাটানোর জন্য নিঃসন্দেহে চলে আসতে পারেন কুদলিতে। সাগরের পানিতে বড়সড় ঢেউ ওঠার কারণে পর্যটকেরা এখানে সারফিং করে থাকেন। করতে পারেন আপনিও!

কুদলি সৈকত, ছবিঃ hellotravels.com

ফিচার ইমেজ- indiatravels.com

তথ্যসূত্রঃ

১. hellotravels.com

২. roughguides.com

৩. traveltriangle.com 

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বোরা বোরা: পৃথিবীর সেরা মধুচন্দ্রিমার গন্তব্য?

কাঠমুন্ডুর থামেল যেন আমাদের শাঁখারি বাজার